Site icon মুক্তির কণ্ঠ । Muktir Kantho

গোয়াইনঘাট’র জাফলং’র ৮টি ঘরের নেই কোন চিহ্ন। মুক্তির কণ্ঠ

 

সৈয়দ মোঃ শামীম, গোয়াইনঘাট (সিলেট) থেকেঃ
সিলেট’র গোয়াইনঘাটে ৪র্থ বারের বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে। ১৫ মে বন্যার ক্ষতি পুরোন না হতেই আবারও বন্যা, আবার ভারী বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সারী ও পিয়াইন নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বাঁধ ভেঙ্গে বন্যার শ্রুতে ৮ টি ঘর নিয়ে গেছে পানিতে খুজে পাচ্ছে না তাদের আসবা পত্র নেই কোন ঘরের চিহ্ন। কোন মতে জান নিয়ে বেঁচে গেছে পরিবারের সদস্যরা। নেই তাদের থাকার জায়গা। টানা ৬/৭দিন বন্যা এখনও বিপাকে সকল বানবাসী মনুষ। তলিয়ে গেছে মসজিদ, মাদ্রাসা, স্কুল-কলেজ, রাস্তাঘাট, ঘরবাড়িসহ বিভিন্ন স্থাপনা। ঝুকিঁপূর্ণ হয়ে পড়েছে সকল নিম্ম অঞ্চলের মানুষ, ভেঙ্গে গেছে প্রায় সকল রাস্তা ঘাট বিচ্ছিন্ন যোগাযোগ। আতঙ্কিত মানুষ স্থান নিয়েছে নিরাপদ আশ্রয়নকেন্দ্রে।

গোয়াইনঘাট উপজেলায় বিরামহীন বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে বন্যা শুরু হয়। বিগত দিনে বন্যা পরিস্থিতি কিছুটা উন্নতি হলেও১৫ গভীর রাত থেকে নদীগুলোর পানি পূনরায় বৃদ্ধি পায়। বুধবার ভোর থেকে সারী ও পিয়াইন নদীর উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পানি ডুকেছে পড়েছে ছড়িয়ে ছিটিয়ে বিভিন্ন স্থান ছোট বড় সব ধরন ভাঙ্গন দিয়ে।

গোয়াইনঘাট,জৈন্তা, কম্পানিগন্জ, সহ তিন উপজেলা পানি বন্ধি তার মধ্যে গোয়াইনঘাট উপজেলা’র ৩নং পুর্ব জাফলং, পশ্চিম জাফলং, লেঙ্গুরা সহ আরো কয়েকটি ইউনিয়ন’র মানুষ পানি বন্ধি।তার মধ্যে বিপদ গ্রস্থ ৩নং পুর্ব জাফলং ইউনিয়নের সানকী ভাঙ্গা, আসাম পাড়া, আসাম পাড়া হাওয়র, নয়াগাঙ্গের পাড়, মধ্যনগড়,নতুন বাজার, নাইন্দা,তিতকুল্লি, বুধিগাও সহ আরো কয়েকশ গ্রাম। বন্যার পানি দ্রুত বৃদ্ধি পাওয়ায় পানিবন্দি মানুষের মাঝে আতংক দেখা দিয়েছে। বিশেষ করে গোয়াইনঘাট’র হাওড় অঞ্চলের মানুষ দিশেহারা হয়ে পড়েছে।দিশে হারা ঘর বাড়ি হারানো অসহায় কিছু পরিবার। জয়নাল আবেদিন, ইউনুস আলি, আব্দুল গাজি, মাইনুদ্ধিন, নুরু মিয়া,হাসেন মিয়া, আবুল হক, বলছে এখন আমরা কোথায় জাব কই থাকব নেই রাত্রে গুমানোর জায়গাটা।ঘর হারানোর সেস সম্বল ছিল থাকার ঘর সেটাও বন্যায় নিয়ে গেল। নারী, শিশু ও গবাদি পশু নিয়ে ছুটছেন নিরাপদ আশ্রয়ের দিকে। কেউ ঘরের মধ্যে স্ত্রী,সন্তানদের নিয়ে খেয়ে না খেয়ে অবস্থান করছে। পানি বন্ধি ও ঘরবাড়ি হারানো মানুষ সরকারের প্রতিনিধি সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতা কর্মিদের পাশে দাড়ানোর জুর দাবি জানিয়েছে।

Exit mobile version